সেলিব্রেটিস
শচীন টেন্ডুলকার এর সংবাদগুলো

জীবন বুত্তান্ত
শচীন টেন্ডুলকার
অনলাইন ঢাকা গাইড
২৭ মার্চ, ২০১৩
শচীন রমেশ টেন্ডুলকার, ক্রিকেট ইতিহাসের অনেক উঁচুমানের ব্যাটসম্যান হিসেবে বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত। ক্রিকেট বিশ্বে তিনি ‘লিটেল মাস্টার’ নামে পরিচিত। যিনি টেস্ট ক্রিকেট ও আন্তর্জাতিক একদিনের খেলায় সর্বোচ্চ সংখ্যক শতকের মালিকসহ বেশ কিছু বিশ্বরেকর্ড ধারণ করে আছেন। তিনি প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একদিনের খেলা ও টেস্ট ম্যাচ মিলিয়ে শততম শতক করেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে ২০১২ সালের এশিয়া কাপ চারদেশীয় ক্রিকেট ম্যাচে তিনি এই রেকর্ড করেন। আন্তর্জাতিক একদিনের খেলার ইতিহাসে প্রথম ডবল সেঞ্চুরির মালিক তিনি । ২০০২ সালের উইসডেন এর একটি নিবন্ধে ...
(মূল লেখা)
ভিভ রিচার্ডসের সাথে খেলতে না পারাটা হতাশার : টেন্ডুলকার
ইত্তেফাক
০৪ জুলাই, ২০১৩
প্রায় ২৪ বছর ধরে ক্রিকেটের আন্তর্জাতিক অঙ্গনে খেলছেন ভারতের মাস্টার­ব্লাস্টার ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকার। সুদীর্ঘ এই সময়ে বিশ্ব ক্রিকেটের অনেক তারকার সাথে খেলেছেন তিনি। তবে দু:খজনক হলেও সত্যি তাদের মধ্যে ছিলেন না টেন্ডুলকারের আশৈশব নায়ক ভিভ রিচার্ডস। আর এই ওয়েস্ট ইন্ডিজ কিংবদন্তির সাথে খেলতে না পারার দুঃখটা এখনো পোড়ায় তাকে। অতীত স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে গতকাল টেন্ডুলকার নিজেই জানালেন এ তথ্য। ১৯৮৭ সালে অনুষ্ঠিত হয়েছিল বিশ্বকাপ ক্রিকেটের চতুর্থ আসর। আর ঐ আসরটি যৌথভাবে আয়োজন করেছিল ভারত ও পাকিস্তান। ভারতে যেই কয়টি ম্যাচ হয়েছিল তার মধ্যে কিছু খেলায় 'বলবয়' হিসেবে মাঠে ছিলেন টেন্ডুলকার। তাই তখনই হয়তো মনে মনে শপথ করে ফেলেছিলেন পরবর্তী বিশ্বকাপে দলের সঙ্গী হবেন তিনি। কারণ পরবর্তী বিশ্বকাপেই দলের অন্যতম বড় ভরসার জায়গায় নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন লিটল মাস্টার। রেকর্ড ছয় বিশ্বকাপের প্রথমটি টেন্ডুলকার খেলেন ১৯৮৯ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেকের তিন বছর পর ভারতের হয়ে নিজের প্রথম বিশ্বকাপ খেলে ফেলেন টেন্ডুলকার। সেই স্মৃতি এখনও আনন্দ দেয় লিটল মাস্টারকে। তেমনটাই জানালেন তিনি, ...
(মূল লেখা)
শুভেচ্ছাদূতের পদ হারালেন শচীন
সমকাল
১৬ জুলাই, ২০১৩
ভারতীয় বিমানবাহিনীর শুভেচ্ছাদূত ছিলেন শচীন টেন্ডুলকার। ভারতীয় কিংবদন্তি শচীনকে 'শুভেচ্ছাদূতে'র পদ থেকে সরিয়ে দিয়েছে ভারতীয় বিমানবাহিনী। প্রত্যাশা পূরণে ব্যর্থ হওয়ার কারণেই এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে তারা। শচীন টেন্ডুলকারকে ২০১০ সালের সেপ্টেম্বরে বিমানবাহিনীর পক্ষ থেকে সম্মানসূচক 'গ্রুপ ক্যাপ্টেন' মর্যাদা দেওয়া হয়। শচীনই ছিলেন প্রথম ভারতীয় ক্রীড়াবিদ, যাকে এ পদমর্যাদা দেয় বিমানবাহিনী। তখন শচীন বলেছিলেন, "আমাকে এ সম্মান দেওয়ায় আমি অত্যন্ত আনন্দিত।" শচীনের তারকাখ্যাতি ব্যবহার করে বিমানবাহিনীতে ভারতীয় তরুণদের আকৃষ্ট করতে চেয়েছিল তারা। সে লক্ষ্যে তেমন সফল হয়নি ভারতীয় ...
(মূল লেখা)
আইপিএল কলঙ্কে মর্মাহত শচিন
যায়যায় দিন
০১ জুন, ২০১৩
তিন ভারতীয় ক্রিকেটারের স্পট ফিক্সিং কেলেঙ্কারি। এরপর গ্রেপ্তার, রিমান্ড। গ্রেপ্তার হয়েছেন একটি ফ্র্যাঞ্চাইজির প্রধান, বলিউডের একজন অভিনেতা ও বেশ কয়েকজন জুয়াড়ি। সার্বিক পরিস্থিতিতে টালমাটাল ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল)। ইস্যুটি নিয়ে বিব্রত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (বিসিসিআই)। গত দুই সপ্তাহ ধরে এতো কিছু চললেও মুখ খুলছিলেন না কোনো ভারতীয় ক্রিকেটার। অবশেষে নিরবতা ভাঙলেন ব্যাটিং জিনিয়াস শচিন টেন্ডুলকার। জানালেন, আইপিএল কলঙ্কে ভীষণ মর্মাহত তিনি। শুক্রবার এক বিবৃতিতে শচিন জানিয়েছেন, এ ঘটনায় তিনি নিদারুণ ব্যথিত ও হতাশ। একই সঙ্গে ফিক্সিংয়ের শিকড় উৎপাটনের লক্ষ্যে ...
(মূল লেখা)
ভারত ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবল খেলবে : শচীন
আমারদেশ
৩০ মে, ২০১৩
কাতারে অনুষ্ঠেয় ২০২২ সালের বিশ্বকাপ ফুটবলে ভারতীয় দল খেলবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ক্রিকেট তারকা শচীন টেন্ডুলকার। মুম্বাইয়ে ফাদার অ্যাঞ্জেল স্কুল মাঠে কোকা কোলা কাপে (অনূর্ধ্ব-১৫ সাব-জুনিয়র ফুটবল টুর্নামেন্ট) মেঘালয় ও উড়িষ্যার মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে টেন্ডুলকার বলেন, ‘আমি জানি সত্যিকার অর্থেই ২০২২ সালে ভারতীয় ফুটবলে বিশেষ কিছু ঘটতে যাচ্ছে। ভারতীয় দল ওই বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে বলে আমি আশা করছি। এমনটাই তোমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত এবং তোমাদের সিনিয়ররা তোমাদের পরিচালনা করবে। কেবল তাদের পদক্ষেপগুলো অনুসরণ এবং তোমাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করো।’ ভারতীয় এ ক্রিকেট গ্রেট ফুটবলের প্রতি আরও বেশি আগ্রহী হতেও তরুণদের পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘তোমাদের প্রতি আমার খুব সাধারণ একটা উপদেশ হচ্ছে ফুটবলের প্রতি অনুরাগী হও। পাগলের মতো খেলাটিকে ভালোবাস এবং এটাই তোমাদের কঠোর পরিশ্রমী করে তুলবে। স্বপ্ন সত্যি হবেই। একাগ্রতার কারণেই আমি সবকিছু অর্জন করতে পেরেছি। ক্রিকেট বলতে আমি পাগল ছিলাম। আজও আমি পাগলের মতো ক্রিকেট ভালোবাসি। অবশ্য সব মানুষের কাছ থেকে পাওয়া সমর্থন ...
(মূল লেখা)
আইপিএল থেকে অবসর শচিনের
সংবাদ
২৮ মে, ২০১৩
চেন্নাই সুপার কিংসকে ফাইনালে পরাজিত করে প্রথমবারের মতো ভারতীয় প্রিমিয়ার লীগের (আইপিএল) শিরোপা লাভ করেছে মুম্বাই ইন্ডিয়ানস। আর সেই কৃতিত্ব অর্জনের পরপরই আইপিএলকে বিদায় জানানোর ঘোষণা দিয়েছেন ভারতীয় ব্যাটিং কিংবদন্তী শচিন তেন্ডুলকার। ৪০ বছর বয়সে এসে বাস্তবতাকে মেনে নিয়েই টি-২০ ইভেন্ট থেকে এই অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন বলে তেন্ডুলকার ম্যাচ শেষে উল্লেখ করেন। রোববার কলকাতার ইডেন গার্ডেনে প্রথমবারের মতো আইপিএলের শিরোপার স্বাদ পাওয়া মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের অন্যতম অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যান তেন্ডুলকার বলেন, 'আমি মনে করি আইপিএল থেকে বিদায় নেয়ার এটাই সঠিক সময়। ...
(মূল লেখা)
আইপিএলকে বিদায় গ্রেট শচীনের
জনকন্ঠ
২৮ মে, ২০১৩
স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ মানুষের এক জীবনে সব আশা পূরণ হয় নাÑ নীতিবাক্যটি অন্তত শচীন টেন্ডুলকরের বেলায় খাটছে না! বাকি ছিল কেবল আইপিএল জয়। রবিবার কলকাতার ইডেনে গার্ডেনে সেটিও পেয়ে গেলেন। মুম্বাইকে ট্রফি উপহার দিয়ে গ্রেট শচীনের অপূর্ণতা ঘোচালেন রোহিত শর্মারা। এর মধ্য দিয়ে ‘ক্রিকেটার শচীনের’ জীবনে অপূর্ণতা বলে কিছু রইল না! শিরোপাজয়ের আনন্দ মঞ্চেই আইপিএলকে বিদায় জানালেন ভারতীয় ক্রিকেটঈশ্বর। এক শ’তম সেঞ্চুরি পেতে বিলম্ব, ফর্ম হারিয়েও আন্তর্জাতিক অঙ্গনের ঘানি টানাÑ গত এক মৌসুম এমনি সব বিতর্ক আর হতাশায় কেটেছে। ঘরের মাটিতে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে সিরিজের আগে তাই হুট করেই বিদায় জানিয়েছিলেন প্রিয় ওয়ানডেকে। এবার ঘরোয় টি২০ নিয়ে আর অপেক্ষা করলেন না। মোক্ষম সময়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিয়ে দিলেন। বললেন ‘এটাই উপযুক্ত সময়।’ ঘরোয়া টি২০’র গ্ল্যামার আসরকে বিদায় জানালেন মুম্বাইয়ের আইকনিক হিরো শচীন রমেশ টেন্ডুলকর। মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স চ্যাম্পিয়ন হওয়ায় আগামী আইপিএলের উদ্বোধনী ম্যাচ হবে শচীনের জন্মস্থান মুম্বাইর ওয়াংখেড়ে স্টেডিয়ামে। ফাইনাল শেষে ধারাভাষ্যকার রবিশাস্ত্রী অনুরোধের সুরে বলেছিলেন, ঘরের জমিনে ওই ম্যাচটা অন্তত খেলে ...
(মূল লেখা)
টেন্ডুলকারকে দেখে শিখতে বলছেন মিয়াঁদাদ
কালের কন্ঠ
৯ মে, ২০১৩
সাফল্যের শিখরে পৌঁছতে হলে ক্রিকেটের প্রতি শচীন টেন্ডুলকারের কাছ থেকে শিক্ষা নাও'_বর্তমান প্রজন্মের ক্রিকেটারদের প্রতি এমনই পরামর্শ জাভেদ মিয়াঁদাদের। তাঁর কাছে সাফল্যের মূলমন্ত্র হচ্ছে প্রতিদিন নিয়ম করে অনুশীলন এবং আত্মতুষ্ট না হয়ে নিরলস পরিশ্রম করে যাওয়া। মিসবাহ-উল হকদের ব্যাটিং পরামর্শ দিচ্ছেন তিনি। আন্তর্জাতিক মঞ্চে প্রতিষ্ঠা পেতে 'লিটল মাস্টারে'র মতো খেলাটির প্রতি নিবেদন, ভালোবাসা নিয়ে কঠোর পরিশ্রম করে যাওয়ার উপদেশ দিয়েছেন তিনি পাকিস্তান ক্রিকেটারদের, 'ওদের উদ্দেশে এতটুকুই বলব, কোচিং কিংবা উপদেশ যতই দেওয়া হোক প্রতিদিনের ব্যক্তিগত পরিশ্রমের বিকল্প হয় না। এ ক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে টেন্ডুলকারের কথা ওদের সামনে তুলে ধরেছি। ...
(মূল লেখা)
তেন্ডুলকার এবার টিভি সিরিয়ালে
সংবাদ
১১ এপ্রিল, ২০১৩
মাস্টার বাস্টার ব্যাটসম্যান শচিন তেন্ডুলকার ভারতের একটি চ্যানেলের টিভি সিরিয়ালে অভিনয় করলেন। 'মাস্টার ব্যাস্টার' নামক একটি টিভি এনিমেশন সিরিজে দেখা যাবে তাকে। ১৯৮৯ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় তেন্ডুলকারের। এরপর আর পিছন ফিরে তাকাতে হয়নি তাকে। ব্যাট হাতে নিজের দাপট দেখিয়ে প্রতিপক্ষ বোলারদের ঘুম হারাম করে ছেড়েছেন তেন্ডুলকার। ব্যাট হাতে এতটাই উজ্জ্বল ছিলেন যে, ওয়ানডে ও টেস্টে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রানের মালিক বনে যান তিনি। ক্রিকেটের ইতিহাসে প্রথম কোন ব্যাটসম্যান টেস্ট, ওয়ানডে ও টি- টোয়েন্টি মিলে করেছেন শততম সেঞ্চুরি। ...
(মূল লেখা)
এক অধ্যায়ের ইতি টানলেন কিংবদন্তি
প্রথম আলো
২৩ ডিসেম্বর, ২০১২
ঢাকার ক্রিকেট দর্শক একদিক দিয়ে নিজেদের ভাগ্যবান ভাবতেই পারে। কারণ, মাস্টার-ব্লাস্টার শচীন টেন্ডুকার এই ঢাকাতেই খেলেছেন জীবনের শেষ একদিনের ম্যাচটি। মিরপুরের শেরেবাংলা স্টেডিয়াম ধন্য হতে পারে ক্রিকেটের ছোট ফরম্যাটে শচীনের শেষ পদচ্ছাপ পেয়ে। কিন্তু ক্রিকেট-বিশ্ব আজ ভারাক্রান্ত শচীন টেন্ডুলকারকে ‘বিদায়’ বলে। সত্যিই ক্রিকেট ইতিহাসের এক ভরপুর অধ্যায়ের পরিসমাপ্তিই ঘটল আজ। আর কোনোদিন রঙিন পোশাকে রাজকীয় ঢঙে দেখা যাবে না ক্রিকেটের এই কৃতী পুরুষকে। শচীন টেন্ডুলকার সম্পর্কে কিছু লিখতে গেলে ক্রিকেট লিখিয়েদের ভাষার খেই হারিয়ে যায়। গত ২৩ বছর কত ...
(মূল লেখা)
‘সচিন, তুমিই ডনের পরে কিন্তু এই খেতাবটা তোমার জন্য নয়’
আনন্দবাজার পত্রিকা
২১/১০/২০১২
সচিন ও ব্র্যাডম্যান: সর্বকালের নিরিখে সচিনকে আমি ডনের পরেই রাখব। যদিও ও অনেক পিছনে থাকা দুই। ব্র্যাডম্যান জাস্ট অনন্য। এই পৃথিবী হয়তো আগামী একশো বছরে আর এক জন তেন্ডুলকর দেখবে। কিন্তু ব্র্যাডম্যান দেখবে না! ডন শেষ করে ৯৯.৯৪ গড় নিয়ে। গ্যারান্টি দিতে পারি আজকের দিনে ওটা দ্বিগুণ হয়ে ১৯৯ দাঁড়াত। আমি একেক সময় ভাবি, আজকের এই সব আধুনিক ব্যাট আর ব্যাটসম্যানের সমর্থনে চলে যাওয়া সব নিয়মকানুনের সুযোগ যদি ডন পেত, তা হলে হয়তো পরের ব্যাটসম্যান আর ক্রিজে নামতেই পারত না। সচিনও খুব বড় ব্যাটসম্যান। আমি হ্যামন্ড, হার্টন, সোবার্স, লারা, উইকস সবাইকে দেখেছি। ভিভকে ততটা দেখিনি। কিন্তু যাদের দেখেছি তাদের মধ্যে ব্যাটসম্যানশিপের দ্বিতীয় শ্রেষ্ঠ মাস্টারমশাই হল সচিন। চেন্নাইতে একটা টেস্ট ম্যাচে ও ওয়ার্ন আর ম্যাকগ্রাকে যে ভাবে মেরেছিল দেখে আমি বিস্ফারিত হয়ে যাই। মনে হচ্ছিল, ডনই কি আবার ফিরে এল? ...
(মূল লেখা)
'ভারতরত্ন’ শচীন টেন্ডুলকার!
প্রথম আলো
২৫/০১/২০১১
প্রাপ্তির খাতায় কী নেই তাঁর! একজন ব্যাটসম্যান গোটা ক্রিকেট ক্যারিয়ারে যা পাওয়ার স্বপ্ন দেখেন, তা তো পেয়েছেনই, যা স্বপ্নেরও বাইরে—তাও পেয়ে গেছেন শচীন টেন্ডুলকার। ভারতের এই ‘লিটল মাস্টারের’ বর্ণাঢ্য ও গৌরবোজ্জ্বল ক্যারিয়ারে প্রাপ্তির খাতায় নতুন এক অধ্যায় সূচিত হতে যাচ্ছে এবার। ভারতীয় মিডিয়ার খবর সত্যি হলে, ভারতরত্ন খেতাবে ভূষিত হতে যাচ্ছেন শচীন। এখন পর্যন্ত ভারতের এই সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাবে ভূষিত হননি ক্রীড়াঙ্গনের ইতিহাসে কেউই। টাইমস অব ইন্ডিয়া জানিয়েছে, শচীনকে ভারতরত্ন খেতাবে সম্মানিত করতে ভারতের বেশ কয়েকজন প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ সুপারিশ ...
(মূল লেখা)
শচীনকে অবসরের শেষ সুযোগ!
মানবজমিন
০৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
ভারতের ক্রিকেট বোর্ড শচীন টেন্ডুলকারকে টেস্ট থেকে অবসরের শেষ সুযোগ দিচ্ছে এবার। এ বছর নভেম্বরে দুই টেস্ট ও তিনটি ওয়ানডে খেলার জন্য ভারতে আসছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ক্রিকেট দল। বিসিসিআই’র একটি সূত্র জানিয়েছে একথা। শচীনকে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ওই টেস্ট সিরিজে দলে রাখা হবে অবসরের শেষ সুযোগ হিসেবে। ভারতের একটি শক্তিশালী সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে যে, বিসিসিআই’র একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন, ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে নিজের সম্মান ও সুনাম বহাল রেখে শচীনের টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় বলার সুযোগ দেয়া হচ্ছে। তিনি যদি সেখানে ভাল ...
(মূল লেখা)
দুইশতম টেস্ট নিয়ে ভাবছেন না শচীন
বাংলা নিউজ টুয়েন্টি ফোর ডট কম
০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৩
মুম্বাই: আরেকটি বিরল অর্জনের সামনে ভারতীয় ব্যাটিং তারকা শচীন টেন্ডুলকার। ভারতীয়দের কাছে ‘ক্রিকেট ঈশ্বর’ খ্যাত এই ব্যাটসম্যান দু’শতম টেস্ট খেলার সুযোগ পাচ্ছেন দেশের মাটিতে। তার এই কৃতিত্ব কীভাবে উদযাপন করা হবে সেটা নিয়েই এখন মাতামাতি চলছে সারা ভারতজুড়ে। সবাই উৎসুক থাকলেও এই মাইলফলক নিয়ে একটুও ভাবছেন না শচীন। অনেকে বলাবলি করছে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে দুই ম্যাচের হোম সিরিজ খেলে টেস্টকেও বিদায় জানাবেন ১৯৮ ম্যাচ খেলা এই তারকা। এসব নিয়েই এক সাক্ষাতকারে হাজির হলেন শচীন,‘একই সময়ে আমি অনেক কিছু নিয়ে ...
(মূল লেখা)
টেন্ডুলকারের ভিভ-আক্ষেপ
প্রথম আলো
০৪ জুলাই, ২০১৩
তাঁর পরবর্তী প্রজন্মের অসংখ্য ক্রিকেটারের আদর্শ তিনি। আদর্শ অনেক সমসাময়িকেরও। তাঁকে ভালোবেসে ক্রিকেট ভালোবেসেছেন কোটি কিশোর-তরুণ। আরও অনেক প্রজন্ম হয়তো বেড়ে উঠবে তাঁকে আদর্শ মেনেই। কিন্তু এই শচীন টেন্ডুলকারেরও তো একজন আদর্শ ছিল! টেন্ডুলকারের জীবনের খুব কম ব্যাপারই অজানা। তাঁর আদর্শের নামটাও তাই অনেকেরই জানা—ভিভ রিচার্ডস। ১৬ বছর বয়সে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে পা রাখলেও রিচার্ডসের সঙ্গে কখনো খেলা হয়নি। টেন্ডুলকারের ক্যারিয়ারে এটা এক বড় আক্ষেপ। পুরোনো আক্ষেপটা নতুন করে জেগে উঠেছে আসলে বিশ্বকাপ প্রসঙ্গে। কদিন আগে মেলবোর্নে বিশ্বকাপের ড্র অনুষ্ঠানের ...
(মূল লেখা)
শচিনই আমার সুপার হিরো
সংবাদ
২১ জুলাই, ২০১৩
চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির পর ত্রিদেশীয় সিরিজ শিরোপা জয়ের পরই দেশে ফিরতে না ফিরতেই আবার ওয়ানডে সিরিজ খেলতে জিম্বাবুয়ে সফরে গেল টিম ইন্ডিয়া। নিয়মিত অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনিকে এ সিরিজে বিশ্রাম দেয়া হয়েছে। বিরাট কোহলিকে অধিনায়ক নির্বাচন করা হয়েছে জিম্বাবুয়ে সফরের জন্য। ধোনিসহ দলের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য না থাকলেও জিম্বাবুয়েগামী দলটিকে শক্তিশালী দল হিসেবে অভিহিত করেছেন অধিনায়ক কোহলি। একটি প্রমোশনাল অনুষ্ঠানে কোহলি বলেন, 'আমি মনে করি না কোন বিষয়, বিশেষ করে সীমিত ওভারের সিরিজে। আপনার দরকার ১১ জন খেলোয়াড়_ যারা সফলতার জন্য থাকবে ক্ষুধার্ত, যারা কঠোর পরিশ্রম করছে এবং যাদের লক্ষ্য হবে দলের বিজয়। দলের ১৫ সদস্যের সবাই শক্তিশালী এবং এটা একটি শক্তিশালী ইউনিট, যেটা খুবই ভালো।'   ...
(মূল লেখা)
আইপিএল থেকে অবসরের ঘোষণা শচীনের
সমকাল
২৮ মে, ২০১৩
আইপিএল থেকে অবসর নেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন লিটল মাস্টার শচীন টেন্ডুলকার।   বিবিসি অনলাইন জানায়, প্রতিযোগিতার ষষ্ঠ আসরে চেন্নাই সুপার কিংসকে রোববার রাতে হারিয়ে তার দল মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স শিরোপা জেতার পরই তিনি এ ঘোষণা দেন।   শচীন টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেন, "আইপিএল থেকে সরে দাঁড়ানোর এখনই ঠিক সময়। ৪০ বছর বয়সে বাস্তবতাকে মেনে নিতে আমার কোনো সমস্যা নেই। তাই সিদ্ধান্ত নিয়েছি অবসর নেয়ার। এটাই আমার শেষ আইপিএল।"   তিনি বলেন, "দারুণ একটি মৌসুম কেটেছে আমাদের। আমার মনে হয় এর আগে তৃতীয় ...
(মূল লেখা)
টেন্ডুলকারের অপূর্ণতার ফাইনাল
কালের কন্ঠ
২৬ মে, ২০১৩
ফাইনালের দিনক্ষণ ঠিক; কিন্তু ফাইনালিস্ট কে? আজ ইডেনে মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের রোহিত শর্মার সঙ্গে টস করতে নামবেন তো মহেন্দ্র সিং ধোনি। নাকি ওয়াকওভার পেয়ে যাবে মুম্বাই কিংবা ফাইনাল খেলবে কোয়ালিফায়ার টু-এ হেরে যাওয়া রাজস্থান রয়্যালস? প্রশ্নবিদ্ধ আইপিএলে এ প্রশ্নগুলোরই উড়াউড়ি ছিল গতকাল। কেননা নিয়ম অনুযায়ী ফাইনালে খেলার কথা নয় চেন্নাই সুপার কিংসের। আইপিএলের ১১.৩ ধারা অনুযায়ী যদি কোনা ফ্র্যাঞ্চাইজি, ফ্র্যাঞ্চাইজি গ্রুপ, কম্পানি কিংবা অন্য মালিকের আচরণ টুর্নামেন্টের, অন্য ফ্র্যাঞ্চাইজি, বিসিসিআই, আইপিএল কিংবা ক্রিকেটের সুনাম ক্ষুণ্ন করে তাহলে ওই দলটিকে লিখিত ...
(মূল লেখা)
স্বর্ণমুদ্রায় টেন্ডুলকার
ইত্তেফাক
১৬ মে, ২০১৩
জীবনে অনেক সোনালী অর্জন তার। ক্রিকেটের অনেক সোনায় মোড়ানো মুহূর্ত এসেছে তার হাত ধরে। বিশ্বের লাখো লাখো ক্রিকেট ভক্তের কাছে তার মূল্য স্বর্ণের চেয়েও বেশি! সেই শচীন রমেশ টেন্ডুলকারের মুখের ছাপওয়ালা স্বর্ণমুদ্রা এবার আপনার হাতের নাগালে! হ্যা, চাইলে এমন একটা স্বর্ণমুদ্রার মালিক হয়ে যেতে পারেন আপনিও! গত মঙ্গলবার মুম্বাইয়ে টেন্ডুলকারের মুখের ছবি সমৃদ্ধ স্বর্ণমুদ্রা উন্মোচন করেছেন সর্বকালের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান নিজেই। মুম্বাইয়ের নামকরা ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান 'ভলমার্ট গোল্ড অ্যান্ড জুয়েল লিমিটেড' তৈরি করেছে ২৪ ক্যারেট সোনার ১০ গ্রাম ওজনের এই মুদ্রা। ...
(মূল লেখা)
ডনের দেশে ‘ডনে’র মূর্তি
প্রথম আলো
২১ এপ্রিল, ২০১৩
অনেক উপহারই পেয়েছেন জন্মদিনে। কিন্তু এই গোধূলিবেলায় যে উপহারটা পেলেন সেটাও হলো মহার্ঘ্য। সামনের বুধবারই চল্লিশে পা দেবেন শচীন টেন্ডুলকার। জন্মদিনের আগেই গতকাল মাদাম তুসো জাদুঘরের সৌজন্যে সিডনি ক্রিকেট গ্রাউন্ডে উন্মোচিত হলো লিটল মাস্টারের মোমের মূর্তি। ঝটিকা সফরে টেন্ডুলকার নিজেই উড়ে গিয়েছিলেন সিডনিতে। ‘স্বামী আর্মি’ নামের একদল ভারত সমর্থকেরাও ছিল সেখানে। তাদের হর্ষধ্বনির মাঝেই অবগুণ্ঠন উন্মোচিত হয় মূর্তিটির।নিজের দেশে তিনি ক্রিকেট-দেবতা। ব্যাট করার সময় সঙ্গে থাকে কোটি ভারতীয়র শুভকামনা। এবার ভারত মহাসাগর পেরিয়ে অস্ট্রেলিয়াও বসলেন সম্মানের শিখরে, সেটাও আবার ...
(মূল লেখা)
কারো পরামর্শে অবসর নেবেন না টেন্ডুলকার!
কালের কন্ঠ
২০ এপ্রিল, ২০১৩
বয়স হয়ে গেছে চল্লিশ। ব্যাটটাও হাসছে না আর আগের মতো। অনেকেই তাই সসম্মানে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের পরামর্শই দিচ্ছেন তাঁকে। খেলা চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে নিতান্ত কাউকে যে পাশে পাচ্ছেন না তিনি তেমনটাও নয়। কিন্তু যাঁকে ঘিরে এত সব কথাবার্তা সেই শচীন টেন্ডুলকারই নানা মুনির নানা মত নিয়ে একদম পরোয়া করছেন না। কে কী বলছে তা নিয়ে ভেবে সময় অপচয় না করে একাগ্রতা নিয়ে তিনি শুধু নিজের কাজটা করে যেতে চান, 'যত দূর মনে পড়ছে প্রশ্নটা শুরু হয়েছে সেই ২০০৫ ...
(মূল লেখা)
লক্ষ্য নির্ধারণে শচিনের অনীহা
যায়যায় দিন
৩০ মার্চ, ২০১৩
ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) ষষ্ঠ মৌসুমে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স সমর্থকদের জন্য শিরোপা জিততে চান ব্যাটিং জিনিয়াস শচিন টেন্ডুলকার। তবে মুম্বাই এপ্রিলের ৩ তারিখ থেকে শুরু হতে যাওয়া এবারের আসরে নিজের জন্য কোনো লক্ষ্য স্থির করতে রাজি নন ক্রিকেট ঈশ্বর। নিজের জন্য নির্দিষ্ট কোনো লক্ষ্য স্থির করে তার পেছনে ছুটা মোটেও পছন্দনীয় নয় শচিনের। 'টাইমস নডি' নামক এক অনুষ্ঠানের ফাঁকে এ প্রসঙ্গে তিনি বলেছেন, 'নিজের জন্য কোনো লক্ষ্য নির্ধারণ করাটা আমি পছন্দ করি না। কখনো কোনো লক্ষ্য নির্ধারণ করলেও সেটা নিজের ...
(মূল লেখা)
ওয়ানডেকে বিদায় বললেন শচীন
প্রথম আলো
২৩ ডিসেম্বর, ২০১২
ঘরের মাঠে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সিরিজ শেষে অবসরের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন—গত অক্টোবরে কথাটা জানিয়ে রেখেছিলেন শচীন টেন্ডুলকার। কথা রেখেছেন লিটল মাস্টার। তবে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সব ফরম্যাট নয়, শুধু ওয়ানডেকে বিদায় জানিয়েছেন ৩৯ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার। ‘ওয়ানডে ক্রিকেট থেকে বিদায় নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি।’ আজ রোববার দেওয়া এক বিবৃতিতে বলেন শচীন। লিটল মাস্টার বলেন, ‘ভারতের বিশ্বকাপজয়ী দলের সদস্য হতে পেরে নিজেকে ভাগ্যবান মনে করি। ২০১৫ বিশ্বকাপে শিরোপা ধরে রাখার লড়াইয়ের প্রস্তুতিটা দ্রুত শুরু করা উচিত এবং এটা জরুরি। আগামী দিনে ...
(মূল লেখা)
নভেম্বরে অবসর নেবেন শচীন টেন্ডুলকার!
নয়াদিগন্ত
০৭/১০/২০১২
‘অবসর নেবার সময় চলে এসেছে’- এমন কথা ইদানিং বারবার শুনতে হচ্ছে ভারতের মাষ্টার ব্লাস্টার ব্যাটসম্যান শচীন টেন্ডুলকারকে। কিন্তু এই নিয়ে যেন মোটেও মাথা ব্যাথা নেই টেন্ডুলকারের। ভারতের জনপ্রিয় দৈনিক পত্রিকা টাইমস অব ইন্ডিয়ায় এক সাাতকারে টেন্ডুলকার বলেন, ‘নভেম্বরে পুনরায় ভবিষ্যত নিয়ে আবারো পরিকল্পনা করবো।’ ক্রিকেটের মাঠে সাম্প্রতিক সময়টা যেন খুব বেশি ভালো যাচ্ছে না টেন্ডুলকারের। দেশের মাটিতে সর্বশেষ সিরিজটি সে কথাই বলছে। নিউজিল্যান্ডের বিপে দুই ম্যাচের সিরিজে তিন ইনিংস ব্যাট করার সুযোগ পান ভারতের ব্যাটিং ঈশ্বর টেন্ডুলকার। আর তাতে ...
(মূল লেখা)
ফুরিয়ে গেছেন শচীন?
প্রথম আলো
০৪/০৯/২০১২
বয়স ৩৯। অবসর নেওয়ার জন্য বয়সটা যথেষ্টই। সমসাময়িক ক্রিকেটারদের প্রায় সবাই বিদায় নিয়েছেন। তবে অবসর নিয়ে যেন কোনো ভাবনাই নেই শচীন টেন্ডুলকারের। শচীন না ভাবলেও তাঁর অবসর নিয়ে অন্যরা ঠিকই ভাবছেন। কারণ, নিজের সত্যিকারের খেলাটা খেলতে পারছেন না লিটল মাস্টার। শচীনের অবসর নেওয়া উচিত, এই দাবি সাবেকদের অনেকেই এর আগে করেছেন। তবে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্ট সিরিজে তাঁর বাজে পারফরম্যান্সের পর দাবিটা জোরালো হয়েছে। কিউইদের বিপক্ষে দুই টেস্টের তিনটি ইনিংসে ব্যাট করেন শচীন। বোল্ড হন তিনটিতেই! আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সর্বোচ্চ রান ...
(মূল লেখা)
‘টাইম’ প্রচ্ছদে শচীন টেন্ডুলকার
আমার দেশ
১২/০৫/২০১২
বিখ্যাত সংবাদ সাময়িকী টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে স্থান করে নেয়াটা যা-তা কথা নয়। দুনিয়ার সব বড় বড় সেলিব্রেটিই কেবল এর প্রচ্ছদে ঠাঁই করে নেয়ার সৌভাগ্য অর্জন করতে পারেন। আর এই টাইম ম্যাগাজিনের প্রচ্ছদে ঠাঁই করে নিয়েছেন ভারতের ক্রিকেট লিজেন্ড লিটল মাস্টার শচীন টেন্ডুলকার। ম্যাগাজিনটিতে তাকে ক্রিকেটের ঈশ্বর বলেও মন্তব্য করা হয়েছে। শচীনের ছবি সংবলিত টাইমের এই সংখ্যায় থাকছে লিটল মাস্টারের একটি সাক্ষাত্কারও। সাক্ষাত্কারে শচীন বলেন, ‘এখনও ম্যাচের আগের রাতে মানসিক চাপে তিনি ঘুমোতে পারেন না। এ চাপই তাকে রেকর্ডভাঙা পারফরম্যান্সের ...
(মূল লেখা)
ভারতীয় দেবতা, ক্রিকেটদেবতা!
দৈনিক ডেসটিনি
২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১০
একজন ক্রীড়া লেখকের কাছে সবচেয়ে কঠিন কর্ম কোনটি বলতে পারেন? শচিন টেন্ডুলকার সম্পর্কে কিছু লেখা। বিগত বিশ বছর ধরেই চলছে ভারতীয় এই ক্রিকেট দেবতাকে নিয়ে লেখালেখি কর্ম। কিন্তু শেষ হচ্ছে না! কী করে শেষ হবে? কীর্তির জন্মদাতা শচিন যে কীর্তি জন্ম দিয়েই চলেছেন। আর সেই কীর্তিগুলোর এক একটি এমন যে, রূপকথার গল্পের মতো_ অসাধারণ, অবিশ্বাস্য, অনিন্দ্যসুন্দর, অবিস্মরণীয় কোনো বিশেষণই যেন তার মাহাত্ম্য বুঝাতে কার্যকর নয়। দশজনের কাছে যা শুধুই কল্পনার, বৃত্তাকার মাঠের বাইশগজি জমিনে দাঁড়িয়ে সেগুলোই বাস্তবে মুড়িয়ে দিচ্ছেন ...
(মূল লেখা)
নীরবতা ভাঙলেন শচিন
ইত্তেফাক
০১ জুন, ২০১৩
ক্রিকেট সমর্থক থেকে শুরু করে গণমাধ্যমগুলো বেশ কদিন যাবত্ই ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের (আইপিএল) স্পট ফিক্সিং নিয়ে বেশ সরগরম। আর এই বিতর্কে এতোদিন এক অর্থে মুখে কুলুপ এটে ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটাররা। তবে, দেরিতে হলেও এক এক করে মুখ খুলতে শুরু করেছেন তারা। অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনি কথা বলার দুদিন বাদেই মুখ খুললেন ব্যাটিং শচিন টেডুলকার। জানালেন স্পট ফিক্সিং বিতর্কে নিজের বিস্ময় আর হতাশার কথা। এবারের আইপিএলে মুম্বাইকে শিরোপা এনে দিয়ে বিদায় জানানো টেডুলকার বলেন, 'গত দুই সপ্তাহে যা ঘটেছে তা ...
(মূল লেখা)
কাতার বিশ্বকাপে খেলবে ভারত : শচিন
সংবাদ
২৯ মে, ২০১৩
কাতার বিশ্বকাপ ফুটবলে ভারতীয় দল খেলবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন ক্রিকেট তারকা শচিন তেন্ডুলকার। নবী মুম্বাইয়ে ফাদার এ্যাঞ্জেল স্কুল মাঠে তেন্ডুলকার সোমবার বলেন, 'আমি জানি সত্যিকারার্থেই ২০২২ সালে ভারতীয় ফুটবলে বিশেষ কিছু ঘটতে যাচ্ছে। ভারতীয় দল ওই বিশ্বকাপ খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে বলে আমি আশা করছি। এমনটাই তোমাদের লক্ষ্য হওয়া উচিত এবং তোমাদের সিনিয়ররা তোমাদের পরিচালনা করবে। কেবল তাদের পদক্ষেপগুলো অনুসরণ কর এবং তোমাদের স্বপ্নকে বাস্তবায়িত কর।' কোকা-কোলা কাপে (অনূর্ধ্ব-১৫ সাব-জুনিয়র ফুটবল টুর্নামেন্ট) মেঘালয় ও উড়িষ্যার মধ্যকার ফাইনাল ম্যাচের পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে তেন্ডুলকার এমন উৎসাহব্যঞ্জক কথাগুলো বলেন। ভারতীয় এ ক্রিকেট গ্রেট ফুটবলের প্রতি আরও বেশি আগ্রহী হতেও তরুণদের পরামর্শ দেন। মাস্টার এ ব্যাটসম্যান বলেন, 'তোমাদের প্রতি আমার খুব সাধারণ একটা উপদেশ হচ্ছে ফুটবলের প্রতি অনুরাগী হও। পাগলের মতো খেলাটিকে ভালোবাস এবং এটিই তোমাদেরকে কঠোর পরিশ্রমী করে তুলবে। যদি তোমাদের স্বপ্ন থাকে এবং অদম্য আগ্রহ থাকে। স্বপ্ন সত্যি হবেই।' 'একাগ্রতা, হ্যাঁ একাগ্রতার কারণেই আমি সবকিছু অর্জন করতে পেরেছি। ক্রিকেট বলতে ...
(মূল লেখা)
মুম্বাইয়ের শিরোপা জয়ে শচিনের স্বপ্ন পূরণ
সংবাদ
২৮ মে, ২০১৩
মাস্টার বস্নাস্টার শচিন তেন্ডুলকার আহত থাকায় সাইড লাইনে বসেছিলেন। বাউন্ডারি লাইনের এত কাছে ছিলেন দেখে যে কারো মনে হবে এই বুঝি উঠে এলেন মাঠ থেকে। একাদশে না থেকেও শচিন তন্ডুলকার জিতলেন আইপিএল শিরোপা। টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ আসরের ফাইনালে চেন্নাই সুপার কিংসকে ২৩ রানে হারিয়ে শচিনের মুম্বাই পেল প্রথম ট্রফি জয়ের স্বাদ। স্কোর : মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স : ১৪৮/৯, চেন্নাই সুপার কিংস : ১২৫/৯ ২০১০ সালে এই চেন্নাই সুপার কিংসের কাছে ফাইনালে হেরেছিল মুম্বাই। পরের দুই মৌসুম চতুর্থ এবং তৃতীয় স্থানে শেষ হয় তাদের অভিযান। আর মহেন্দ্র সিং ধোনির নেতৃত্বে চেন্নাই টানা চতুর্থ ফাইনাল খেলে হারল শেষ দুটিতে। আইপিএলের ছয় আসরে পাঁচবার ফাইনাল খেলে তিনবারের রানার্সআপ চেন্নাই (২০০৮, ২০১২ ও ২০১৩)। চ্যাম্পিয়ন হয় ২০১০ এবং ২০১১ মৌসুমে। গত রোববার কলকাতা ইডেন গার্ডেনে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স ১৪৮ রান করে ৯ উইকেটে। তাদের ইনিংসে ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ স্কোর বলতে কাইরান পোলার্ডের ৩২ বলে খেলা ৬০ রান। এই ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানের দারুণ ইনিংসেই চ্যালেঞ্জিং স্কোর পায় মুম্বাই। পোলার্ডের ...
(মূল লেখা)
বিদায় শচীন
মানবজমিন
২৮ মে, ২০১৩
মুম্বইয়ের শিরোপা জয়ের পরপরই শচীন ঘোষণা দেন, আর আইপিএল নয়। চল্লিশে পা দেয়া শচীন অবশ্য আইপএলে তার শেষ খেলাটা আগেই খেলে ফেলেছেন। কারণ, শেষ ম্যাচে তাকে নামানোই হয়নি। আইপিএলকে বিদায় বললেও চ্যাম্পিয়ন্স লীগ টি-২০তে তিনি খেলবেন কিনা তা পরিষ্কার করেননি। তিনি এবারের আসরে শেষ বলটি খেলেন প্রায় ১৫ দিন আগে সানরাইজ হায়দারাবাদের বিরুদ্ধে। ওই বল তিনি লং অন দিয়ে উড়িয়ে মাঠের বাইরে পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু তারপরেই তিনি আহত হয়ে মাঠ ছাড়েন। এরপর আর কোন খেলায় অংশ নিতে পারেননি। রোববার ফাইনাল শেষে এক টিভি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, এটি আমার শেষ আইপিএলে। এটি চমৎকার এক আসর ছিল। আমার মনে হয় এর আগে তৃতীয় আসরটি সেরা ছিল। আমার মনে হয় এখনই ভাল সময় বিদায় বলার। আমার বয়স ৪০, এটা মানতেই হবে। আমি সিদ্ধান্ত নিয়েছি আইপিএলে এটি আমার শেষ মওসুম।’ আইপিএলে শচীন খেলেছেন ৭৮টি ম্যাচ যাতে তার সংগ্রহ ২৩৩৪ রান। গড় ৩৪.৮৩, স্ট্রাইক রেট ১১৯.৮১। এর মধ্যে একটি সেঞ্চুরি আর ১৩টি হাফ সেঞ্চুরি রয়েছে। ...
(মূল লেখা)
বেশি বাউন্ডারি টেন্ডুলকারের
কালের কন্ঠ
৯ মে, ২০১৩
আইপিএলের এবারের আসরটা মোটেও ভালো যাচ্ছে না শচীন টেন্ডুলকারের। যেখানে এ আসরে ক্রিস গেইলের রান পাঁচ শতাধিক সেখানে টেন্ডুলকারের সংগ্রহ মাত্র ২৩৪। তবে আইপিএলের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বাউন্ডারি এখনো মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের এই ব্যাটসম্যানের। মঙ্গলবার কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে ৮ বাউন্ডারিতে টপকে গেছেন তিনি গৌতম গম্ভীরকে। এ ম্যাচে শূন্য রানে আউট হওয়া গম্ভীরের বাউন্ডারির সংখ্যা ২৮১। ম্যাচের আগে টেন্ডুলকারেরও ছিল তাই, কিন্তু ম্যাচে এদিন আরো ৮ বাউন্ডারিতে এই ব্যাটিং জিনিয়াস সংখ্যাটা নিয়ে গেছেন ২৮৯-এ। ২৫৪ বাউন্ডারি নিয়ে তৃতীয় স্থানে দিলি্ল ডেয়ারডেভিলসের বীরেন্দর শেবাগ। রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর রাহুল দ্রাবিড় ও জ্যাক ক্যালিস যথাক্রমে চতুর্থ ও পঞ্চম স্থানে। ...
(মূল লেখা)
‘আমি এখনো সেই একই শচীন’
প্রথম আলো
২৫ এপ্রিল, ২০১৩
তাঁর একান্ত ইন্টারভিউ পাওয়া আকাশের চাঁদ হাতে পাওয়ার মতোই। ৪০তম জন্মদিনে বেশ উদার হলেন শচীন টেন্ডুলকার। দীর্ঘ এক সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ভারতের দুটি দৈনিক পত্রিকাকে। সেই দুই সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ  ক্যারিয়ারের এই পর্যায়ে সতীর্থদের কাছে নিজেকে কীভাবে দেখেন, একজন সিনিয়র নাকি সতীর্থ? শচীন টেন্ডুলকার: আমি সিনিয়র অবশ্যই, আবার ওদের সতীর্থও। দলকে ঘিরেই সব সময় সবকিছু। আমি সব সময়ই ভালো একজন মানুষ হতে চাই। সিনিয়র শুধু অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করার ক্ষেত্রে। সেটাই আমার কাজ, দল ও সতীর্থদের প্রতি দায়িত্ব। ওদের সঙ্গে ...
(মূল লেখা)
নিজের মতো থাকতে চান শচিন
ইত্তেফাক
২০ এপ্রিল, ২০১৩
ওয়ানডে ক্রিকেট ছেড়েছেন কিছুদিন হল। আর বিগত বেশ কিছু দিন যাবত সেরা ফর্মেও নেই। আর তাই সমালোচকদের মন্তব্যও বেশ ভালই সহ্য করতে হচ্ছে ভারতীয় কিংবদন্তি ব্যাটসম্যান শচিন টেন্ডুলকার। তবে লিটল মাস্টার জানালেন, তার অবসর নিয়ে অন্যদের মতামতকে তিনি পরোয়া করেন না এবং তিনি কেবলমাত্র নিজের কাজের প্রতি একাগ্র থাকবেন।আগামী বুধবার ৪০ এ পা রাখতে যাচ্ছেন শচিন। এই বয়সে এসেও নিজের ফর্ম ধরে রাখাটাও বেশ কঠিন। ভারতে প্রথম একটি ই-সংবাদপত্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, 'অনেক দিন যাবত অনেক লোকেই এ বিষয়ে (অবসর) কথা বলে আসছেন। আমার যদি ভুল না হয় তাহলে ২০০৫ সাল থেকে এ বিষয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে এবং সে সময় থেকে অদ্যাবধি আলোচনা চলছেই। কিন্তু জবাবে আমি সব সময়ই বলে আসছি আমি আমার কাজ করব, তোমরা তোমাদের কাজ কর।'কবে তিনি অবসর নেবেন— প্রতিনিয়ত এমন প্রশ্নে তার পারফরমেন্সে কোন প্রভাব পড়ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে টেন্ডুলকার বলেন, 'এটা আমাকে প্রভাবিত করে না।'পত্রিকাটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরুর পর এক আলোচনায় অংশ ...
(মূল লেখা)
সমালোচকদের এক হাত নিলেন শচীন
ইত্তেফাক
২০ এপ্রিল, ২০১৩
বিগত বেশ কিছু দিন যাবত সেরা ফর্মে না থাকলেও ভারতীয় মাস্টার ব্যাটসম্যান শচিন টেন্ডুলকার বলেছেন, তার অবসর নিয়ে অন্যদের মতামতকে তিনি পরোয়া করেন না এবং তিনি কেবলমাত্র নিজের কাজের প্রতি একাগ্র থাকবেন।ভারতে প্রথম একটি ই-সংবাদপত্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, ‘অনেক দিন যাবত অনেক লোকেই এ বিষয়ে (অবসর) কথা বলে আসছেন। আমার যদি ভুল না হয় তাহলে ২০০৫ সাল থেকে এ বিষয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে এবং সে সময় থেকে অদ্যাবধি আলোচনা চলছেই। কিন্তু জবাবে আমি সব সময়ই বলে আসছি আমি আমার কাজ করব, তোমরা তোমাদের কাজ কর।’কবে তিনি অবসর নেবেন- প্রতিনিয়ত এমন প্রশ্নে তার পারফরমেন্সে কোন প্রভাব পড়ছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে টেন্ডুলকার বলেন, ‘এটা আমাকে প্রভাবিত করে না।’পত্রিকাটির আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরুর পর এক আলোচনায় অংশ নিয়ে কথা বলছিলেন টেন্ডুলকার। এ সময় দুই মন্ত্রী কপিল সৈবাল ও মনিস তিত্তয়ারিও উপস্থিত ছিলেন। ২০১১ সালের বিশ্বকাপে ৯৯তম সেঞ্চুরি করার পর তার শততম আন্তর্জাতিক সেঞ্চুরির জন্য গণমাধ্যম কতটা আশান্বিত ছিল সে বিষয়েও কথা ...
(মূল লেখা)
সমালোচনায় বিব্রত নন শচিন
যায় যায় দিন
২০ এপ্রিল, ২০১৩
ব্যাট হাতে সময়টা মোটেও ভালো যাচ্ছে না ভারতীয় ব্যাটিং জিনিয়াস শচিন টেন্ডুলকারের। তাই প্রতিনিয়তই ক্রিকেটকে বিদায় জানানোর বিষয়ে বিভিন্নজনের মন্তব্য শুনতে হচ্ছে তাকে। তবে এসব সমালোচনায় মোটেও বিব্রত নন মাস্টার বস্নাস্টার। বরং সবকিছু সামাল দিয়ে সামনে এগিয়ে যাওয়ার দৃঢ়প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন তিনি। ভারতের একটি সংবাদপত্রের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে শচিন বলেছেন, 'অনেক দিন যাবত অনেক লোকেই এ বিষয়ে (অবসর) কথা বলে আসছেন। আমার যদি ভুল না হয়, তাহলে ২০০৫ সাল থেকে এ বিষয়ে প্রশ্ন তোলা হচ্ছে। সে সময় থেকে ...
(মূল লেখা)
‘অর্ডার অব অস্ট্রেলিয়া’ সম্মাননায় ভূষিত শচীন
প্রথম আলো
০৬/১১/২০১২
শচীন টেন্ডুলকারকে ‘অর্ডার অব অস্ট্রেলিয়া’ সম্মাননা দেওয়া উচিত কি না, এ নিয়ে যথেষ্ট বিতর্ক হয়েছে। তবে সব বিতর্ক পেছনে ফেলে আজ মঙ্গলবার সম্মাননাটি গ্রহণ করেছেন লিটল মাস্টার। মুম্বাইয়ে শচীনকে ‘অর্ডার অব অস্ট্রেলিয়া’ সম্মাননায় ভূষিত করেন অস্ট্রেলিয়ার শিল্পকলাবিষয়ক মন্ত্রী সাইমন ক্রিন। সম্মাননার স্মারক হিসেবে ৩৯ বছর বয়সী শচীনের হাতে একটি পদক ও ক্রিকেট স্ট্যাম্প তুলে দেন তিনি। ভারতীয়দের মধ্যে শচীনই প্রথম এই সম্মাননা পেলেন, এমন নয়। এর আগে এই সম্মাননা পেয়েছেন ভারতের সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল সোলি সোরাবজি। ভারত সফরে এসে ...
(মূল লেখা)

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত অনলাইন ঢাকা গাইড -২০১৩